কুইন্স ম্যানশন, যার আসল নাম গ্যালস্টাউন ম্যানশন।

বিল্ডিংটা চেনা চেনা লাগছে! কোথায় বলুন তো ? ফ্লুরিজ, পিটার ক্যাট যে বিল্ডিং-র নিচের তলায়, ত্রিঙ্কাসের উল্টো দিকে রাসেল স্ট্রিট আর পার্ক স্ট্রিটের ক্রসিংয়ের কোণার প্লটে যে বড়ো বাড়িটা যার বর্তমান কুইন্স ম্যানশন । বাড়িটার আসল নাম গ্যালস্টাউন ম্যানশন।



১৯২০ সালে সাড়ে ছয় লক্ষ টাকা ব্যায় করে এই বিশাল ইমারতটি তৈরি করা হয়েছিল, যা সেই সময়ে শুধুমাত্র একটা বাড়ির জন্য অত্যন্ত বিলাসবহুল ! ছয় তলার এই বাড়ি গঠন অনুযায়ী এখন যেমন আছে একশো বছর আগেও তাই ছিল, উপরের তলায় অ্যাপার্টমেন্ট আর গ্রাউন্ড ফ্লোরে দোকানপাট (বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান) । তখন এই বাড়ির ছাদ থেকে গঙ্গা সহ পুরো কলকাতা শহরের এক চমৎকার দৃশ্য দেখা যেত ।

আর্মেনীয়রা যখন কলকাতায় রমরমিয়ে ট্রেডিং কোম্পানি, পাবলিশিং হাউস, শিপিং লাইনের সাথে যুক্ত হয়ে নীল, লাক্ষা(গালা ) এবং জুয়েলারির ব্যবসা শুরু করেছিল তখন এক আর্মেনী এই ম্যানশনটি বানিয়েছিলো, শহরের প্রাণকেন্দ্রে । তারা শহরের প্রাইম রিয়েল এস্টেটেরও মালিক ছিল আর তাই হয়তো আর্মেনীয়রা কলকাতায় অনেক বড়ো এবং ইউরোপীয় ধাঁচে, কারুকার্যময়  সুন্দর প্রাসাদ ও অট্টালিকা তৈরি করেছিল।

এই প্রাসাদটি (বাড়িটি ) তৈরি করেছিলেন জোহানেস ক্যারাপিয়েট গ্যালস্টাউনের, ১৮৫৯ সালে ইরানে জন্মগ্রহণ করে তিনি উচ্চ শিক্ষার জন্য অল্প বয়সে কলকাতায় আসেন। জাস্ট ভাবুন পড়াশোনার জন্য কলকাতায় এসেছিলো ! এসে তিনি এখানকার আর্মেনিয়ান ফিলানথ্রপিক একাডেমিতে ভর্তি হন, যা বর্তমানে আর্মেনিয়ান কলেজ নামে পরিচিত আর পরে জন্য সেন্ট জেভিয়ার্সে যান। ধীরে ধীরে, তিনি তার চেষ্টা, অধ্যবসায় এবং বুদ্ধি দিয়ে একটি টাকশাল তৈরি করেছিলেন। পরে তিনি একজন রিয়েল এস্টেট টাইকুন আর ঘোড় দৌড়ে এতটাই  উৎসাহী ছিলেন যে একসময় জোহানেস গালস্টাউনের নাম উল্লেখ না করে ভারতে ঘোড়দৌড় হতো না । নিজে থেকে অর্থ, প্রতিপত্তি, নাম-যশ বানিয়েছিলেন  বলে হয়তো অপরমহল ব্রিটিশদের সাথে ওঠাবসা ছিল । কিন্তু দুর্ভাগ্যবশতঃ লক্ষী বেশিদিন তার সাথে থাকে নি, কোনো ভাবে ( কারোর কথায় ছলে-বলে ) তিনি রিয়েল এস্টেট এবং হর্স রেসিং দুটো থেকেই সর্বস্ব হারিয়েছিলেন।

তার তৈরি করা আর একটা প্রাসাদ রয়েছে যা তিনি তার স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে তৈরি করেছিলেন, তখন নাম ছিল গালস্টাউন পার্ক । এখন আমরা যে বাড়িটি নিজাম প্যালেস নামে চিনি । ক্যামাক স্ট্রিটের ক্রসিংয়ের কাছে, এজিসি বোস রোডে তার পাঁচটি মুকুটের মতো গম্বুজ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে । এটা তার স্ত্রীর জন্য বানিয়েছিলেন বলে তৎকালীন রানীদের প্রাসাদের মতো করে বানানো । আমোদ-প্রমোদ আর বিলাসিতার সব সুবিধে আছে, আর মাথাঘুরে যাবার মতো সূক্ষ্য ডিজাইন করা পুরো বাড়িটায় ।


এই দুটো বিল্ডিং-এর আকার, আকৃতি, অলঙ্করণ, অউটলুক, ইঞ্জিনিয়ারিং, কার্যকারিতা, প্রয়োজনীয়তার এবং ব্যবহার সেই সময়ে যথেষ্ট প্রসংশা কুড়িয়েছিল। যা একটা বিষয় তো নিশ্চিত করে যে, সেই সময়ের তৈরি এই বিশাল গালস্টাউন ম্যানশন, গালস্টাউন পার্ক এবং এরকম আরও অনেক বড় বড় প্যালেস, ব্রিটিশ শাসনাকালে কলকাতায় আর্মেনীয় সম্প্রদায়ের আধিপত্যের প্রমান দেয় ।



১৯২৪ সালে, বেঙ্গল ক্লাব তাদের সদস্যদের ব্যবহারের জন্য গ্যালস্টাউন ম্যানশনে বেশ কয়েকটি চেম্বার কিনেছিল। কিন্তু, যেহেতু বেশিরভাগ সময় কক্ষগুলি খালি থাকে, ক্লাবটি সেগুলি বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছিল। সেই ক্লাব এখানে এক অল্প সময়ের জন্য একটি ক্যাটারার খুলেছিলো যার নাম হেইঞ্চেস কিচেন। এই প্যালেসে এক সময় অনেক বিখ্যাত অফিস ছিল : যেমন ওরিয়েন্টাল গ্যাস কোম্পানি, যারা কলকাতার রাস্তায় প্রথম আলো জ্বালিয়েছিল, মীরতা লিনা : ফ্যাশান ডিসাইনার (মেয়েদের পোশাকের), মাস্টার টেইলার্স বরকত আলী অ্যান্ড ব্রাদার্স, সাহনী অ্যান্ড সন্স, স্বনামধন্য জুয়েলার্স স্যাট্রামদাস ধলমাল, ম্যাগনোলিয়া রেস্তোরাঁ, কেমল্ড আর্ট গ্যালারি, ক্যাসলউডস, যেখানে আইএফএ শিল্ড বার্ষিক পালিশ, হারমনি হাউস, হেয়ারড্রেসার এএন জন । ইম্পেরিয়াল ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ারও একটি অফিসও ছিল এই ভবনে।

উপরে নাম গুলোর কিছু এখনো গর্বের এই শহরে সাথে আছে বাকি গুলো কালের গর্ভে মিলিয়ে গেছে ।

১৯৫৩ সালে, রানী এলিজাবেথের রাজ্যাভিষেক উপলক্ষে গ্যালস্টাউন ম্যানসনটির নাম পাল্টে দিয়ে কুইনস ম্যানশন করা হয়, যেটা প্যালেসের গায়ে খোদাই করা আছে ।


Comments

Popular posts from this blog

Baya Weaver's Nest

A lost port: Mandvi

Rompope: an eggnog drink of Mexico